তারাবির নামাজ

তারাবির নামাজের দোয়া।তারাবির নামাজের নিয়ত ও মোনাজাত 2022

Spread the love

পবিত্র রমজান মাস সিয়াম পালনের মাস। রমজান মাস ইমানদার চিনার মাস। ঈমান কতটুকু মজবুত তা জানার এবং বোজার মাস। আল্লাহ তায়ালা এই মাসে অনেক ফজিলত দিয়ে থাকেন বান্দারের।অসংখ্য নিয়ামত আছে এই মাসের। গুনাহ মাফের মাস, নিজেকে পরিশু্দ্ব করার মাস। এই মাসেই রয়েছে শবে কদরের মতো ফজিলত পূর্ণ রাত।

এবং সবশেষে ঈদুল ফিতর যা মুস্লিম উম্মাহর জন্য সবচেয়ে খুশির দিন।তারাবি নামাজ নিয়ে অনেক আজেবাজে কথা শুনা যায়।তারাবি নামাজের রাকায়াত যেমন অনেকে তারাবির নামাজের রাকায়াত সংখ্যা কমিয়ে দেয় আবার অনেকে তারাবি নামায  সুন্নত নফল নিয়ে তর্কে লিপ্ত এমনকি মোনাজাতা নিয়েও তর্ক করে।

কি অবস্থা। আরে ভাই মুনাজাত তো আল্লাহর কাছে কিছু চাওয়া সেখানে মুনাজাত নিয়ে সমস্যা কি তুগো। তারা কিভাবে মানুষের মন থেকে ইসলামকে উঠিয়ে দিচ্ছে।তারাবি নামাজ না পরলে কি গুনাহ হবে? এই নামাজ সুন্নাত নাকি নফল? নামাজ কতো রাকায়াত এবং তারাবি নামাজের নিয়ম কানুন সহ আরো অনেক কিছু বিস্তারিত দেওয়া আছে এখানে।

যা যা জানতে পারবেনঃ-

  • তারাবির নামাজের নিয়ম
  • তারাবির নামাজের নিয়ত tarabi namaz niyat
  • তারাবির নামাজের মোনাজাত 
  • তারাবির নামাজের দোয়া
  • রমজান মাসে বিতরের নামাজ
  • তারাবি নামাজ কয় কত রাকায়াত
  • তারাবি নামাজ সুন্নত নাকি নফল
  • তারাবি নামাজ না পড়লে কি গুনাহ হবে

তারাবির নামাজের নিয়ম

তারাবির নামাজের নিয়ম

তারাবির নামাজের নিয়ম  ইশার নামাজের পর হইতে ছোব্‌হে কাজেব পর্যন্ত পড়িতে পারা যায়। ইশার নামাজের ফরয ও দুই রাকাত ছুন্নতের পর এবং বিতরের পূর্বে পড়িতে হয়।তারাবির নামাজ পড়ার নিয়ম হলো তারাবীহের নামাজ দুই রাকাত করিয়া বিশ রাকাত পড়িতে হয়। অন্য নামাজে যেভাবে সূরা মিলান ঠিক সেভাবে মিলাবেন। বেসিক নিয়মগুলো নিচে দিয়ে দিলাম

  • নামাজের দোয়া পড়বেন
  • নিয়ত করবেন
  • আল্লাহুয়াকবার বলে হাত বাঁধবেন
  • ছানা পড়বেন
  • আলহামদুলিলাহ পড়বেন
  • সূরা মিলাবেন আর নাইলে জামাতে পড়বেন

তারাবির নামাজের নিয়ত দেওয়া গেলঃ—

তারাবির নামাজের নিয়ত tarabi namaz niyat

نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ للهِ تَعَالَى رَكْعَتَى صَلَوةِ التَّرَاوِيْحِ سُنَّةُ رَسُوْلِ اللهِ تَعَالَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِيْفَةِ اللهُ اَكْبَرْ

তারাবির নামাজের নিয়ত বাঃ উঃ- নাওয়াইতু আন্ উছাল্লিয়া লিল্লাহে তায়ালা রাকআতাই ছালাতি তারাবীহে সুন্নাতুরাছুলিল্লাহে তায়ালা মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ্ শারীফাতে আল্লাহু আব্বর।

যদি উপযুক্ত হাফেজ যিনি সম্পূর্ণ কোরান শরীফ ভালরূপে মুখস্ত করিয়াছেন। ও শরীয়তের বিধানানুযায়ী চলেন এবং টাকা-পয়সার লোভ না করিয়া শুধু আল্লাহর ওয়াস্তে তারাবীহের নামাজে কোরান শরীফ খতম করেন, ঐ রকম উপযুক্ত হাফেজ পাইলে তাঁহার পিছনে খতমে তারাবীহের নামাজ পড়িতে পারা যায়।

উল্লিখিত শর্তানুযায়ী হাফেজ পাওয়া না গেলে একা অথবা কয়েকজনে মিলিয়া উপযুক্ত ইমামের পিছনে জমাতের সহিত সূরা তারাবীহের নামাজ পড়াই উত্তম।

তাহাজ্জুত নামাজের নিয়ম নিয়ত জানুন>

(১) সূরা তারাবীহের মধ্যে সূরা “আলাম তারা” হইতে সূরা “নাছ” পৰ্য্যন্ত দুইবার পড়িলে বিশ রাকাত তারাবীহের নামাজ শেষ হয়।

(২) প্রতি রাকাতে সূরা ইখলাছ একবার করিয়াও পড়িলে বিশ রাকাত তারাবীহের নামাজ আদায় করিতে পারা যায়। প্রথম নিয়মে পড়িলে কোরান খতমের ছওয়াব পাওয়া

তারাবির নামাজের দোয়া 

তারাবির নামাজ পড়তে অনেক সময় লাগে।আপনার একটানা পড়লে পা বেথা বা অন্য সমস্যাও হতে পারে। তারাবী নামাজে প্রতি ৪ রাকায়াত পর পর দোয়া আছে। আপনি দোয়াটি ও পড়লেন আপনার একটু জিরানি ও হলো। প্রতি চার রাকাত তারাবীহ্ নামাজের শেষে নীচের দোয়াটি তিনবার পাঠ করিবে।

তারাবি নামাজের দোয়া

سُبْحانَ ذِي الْمُلْكِ وَالْمَلَكُوتِ سُبْحانَ ذِي الْعِزَّةِ وَالْعَظْمَةِ وَالْهَيْبَةِ وَالْقُدْرَةِ وَالْكِبْرِيَاءِ وَالْجَبَرُوْتِ سُبْحَانَ الْمَلِكِ الْحَيِّ الَّذِيْ لَا يَنَامُ وَلَا يَمُوْتُ اَبَدًا اَبَدَ سُبُّوْحٌ قُدُّوْسٌ رَبُّنا وَرَبُّ المْلائِكَةِ وَالرُّوْحِ

তারাবির নামাজের দোয়া বাঃ উঃ— সুবহানা যিল্ মুলকে ওয়াল্ মালাকুতে সুবৃহানা যিল্ ইয্যাতে ওয়াল্ আযমাতে ওয়াল্ হাইবাতে ওয়াল্ কুদ্রাতে ওয়াল্ কিবরিয়ায়ে ওয়াল জাবারূত সুব হানাজিল মালিকিল হাইয়্যিল্লাযী লা ইয়ানামু ওয়া লা ইয়ামুতু আবাদান্ আবাদান্ সুব্বুহুন কুদ্দুসুন্ রাব্বুনা ওয়া রাব্বুল মালাইকাতে ওয়ার্ রূহ্।

তারাবির নামাজের দোয়া অর্থঃ আমি রাজ্য ও রাজত্বের অধিকারী আল্লাহ্ তায়ালার পবিত্রতা বর্ণনা করিতেছি। সম্মান, মহত্ব, আতঙ্ক, ক্ষমতা, গর্ব ও অসীম ক্ষমতার অধিকারী আল্লাহ তায়ালার পবিত্রতা বর্ণনা করিতেছি। আমি ঐ মহান বাদশাহর পবিত্রতা বর্ণনা করিতেছি, যিনি চিরঞ্জীব, কখনও নিদ্রা যান না ও মৃত্যু বরণ করেন না। আমাদের প্রভু ও ফেরেশ্তাগণের ও জীবরীল (আঃ) বা রূহের প্রভু অতি পবিত্র, পরম পবিত্র।

তারাবির নামাজের মোনাজাত tarabi namaz munajat

তারাবির নামাজের দোয়া

নামাজ শেষ করে দোয়া পড়ে মোনাজাত দিবেন। একটা কুথা মনে রাখবেন যতো দোয়া করবেন ততো  আপনার লাভ, লস হবার সুযোগ নেই। তাই অন্যদের কথা কানে নিবেন না। কিন্তু আপনার যদি তাড়াহুড়া থাকে তাহলে আপনি পুরো ২০ রাকআত শেষ করেও মুনাজাত দিতে পারেন।সবসেষে হাত উঠাইয়া তারাবির নামাজের এই মোনাজাতটি করিবে।

তারাবি নামাজের মোনাজাত

اَللَهُمَّ اِنَّا نَسْئَالُكَ الْجَنَّةَ وَ نَعُوْذُبِكَ مِنَ النَّارِ يَا خَالِقَ الْجَنَّةَ وَالنَّارِ- بِرَحْمَتِكَ يَاعَزِيْزُ يَا غَفَّارُ يَا كَرِيْمُ يَا سَتَّارُ يَا رَحِيْمُ يَاجَبَّارُ يَاخَالِقُ يَابَارُّ – اَللَّهُمَّ اَجِرْنَا مِنَ النَّارِ يَا مُجِيْرُ يَا مُجِيْرُ يَا مُجِيْرُ- بِرَحْمَتِكَ يَا اَرْحَمَ الرَّحِمِيْنَ

তারাবির নামাজের মোনাজাত বাঃ উঃ— আল্লাহুম্মা ইন্না নাছআলুকাল্ জান্নাতা ওয়া নাউযুবিকা মিনান্নারে ইয়া খালেকাল্ জান্নাতে ওয়ান্নারে বেরাহমাতিকা ইয়া আযীযু, ইয়া গাফ্‌ফ্ফারু, ইয়া কারীমু, ইয়া ছাত্তারু, ইয়া রাহীমু, ইয়া জাব্বারু, ইয়া খালেকু, ইয়া বাররু, আল্লাহুম্মা আজিরনা ওয়া খাল্লিছনা মিনান্নার, ইয়া মুজীরু, ইয়া মুজীরু, ইয়া মুজীরু, বি-রাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহেমীন।

তারাবির নামাজের মোনাজাত অর্থঃ আয় আল্লাহ্! নিশ্চয় আমরা তোমার দরবারে বেহেশ্ত চাহিতেছি এবং তোমার নিকট দোযখ হইতে আশ্রয় চাহিতেছি তোমারই করুণায়, হে বেহেশত ও দোযখের স্রষ্টা! হে পরাক্রমশালী! হে অসীম ক্ষমাকারী!

হে মহান দাতা! হে দোষ-ত্রুটি গোপনকারী। হে দয়াময়! হে মহাক্ষমতাবান! হে সৃষ্টিকর্তা! হে হে আল্লাহ্! আমাকে আশ্রয় দান কর এবং আমাকে দোযখ হইতে আশ্রয়দাতা! হে আশ্রয়দাতা! হে আশ্রয়দাতা! আপন করুণায়, হে সর্বাপেক্ষা বেশী দয়াল।

পবিত্র রমযান মাসে তারাবীহের নামাজ জমাতে আদায় করিবার সময় কোন লোক ২,৪,৬,৮ বা ততোধিক রাকাত জমাতে আদায় করিতে পারিল না, এমতাবস্থায় যত রাকাত তারাবীহের নামাজ জমাতে পড়িতে পারে নাই তত রাকাত, বিতরের নামাজ জমাতে পড়ার পর আদায় করিবে।

রমজান মাসে বিতরের নামাজ

পবিত্র রমযান মাসে বিতরের নামাজের প্রথম রাকাতে সূরা তাকাছুর’ দ্বিতীয় রাকাতে ‘কাফিরূন’ তৃতীয় রাকাতে সূরা ইখলাছপড়া অতি উত্তম।রমযান ব্যতীত অন্য সময়ে বিতরের নামাজের প্রথম রাকাতে সূরা ‘নছর’,দ্বিতীয় রাকাতে সূরা লাহাব, তৃতীয় রাকাতে সূরা ‘ইখলাছ’ পড়িলে দাঁতের রোগ, সান্নি রোগ হতে, খোদার ফযলে আমান থাকা যায়।

তারাবি নামায নিয়ে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

 

প্রশ্নঃতারাবির নামাজ কত রাকাত ?

উত্তরঃ তারাবি নামাজের রাকআত নিয়ে অনেক তর্ক আছে। কিন্তু সর্বসম্মত মত অনুসারে তারাবি নামাজ ২০ রাকাত।

প্রশ্নঃতারাবির নামাজ সুন্নত নাকি নফল?

উত্তরঃ তারাবি নামাজ সুন্নত


Spread the love

Leave a Comment Cancel Reply