টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট। সেরা ওয়েবসাইটগুলো।Best Websites 2022

Spread the love

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলো কি কি- জানুন 2022

আপনি হয়তো টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট খুঁজে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু সঠিক কোনো দিকনির্দেশনা পাচ্ছে না। আপনি এখন মনে করছেন, অনলাইনে ইনকাম সম্পূর্ণ ভুয়া। কিন্তু আজকে টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলো ১০০% সত্য ও পেমেন্ট করে থাকে। সবকয়টি ওয়েবসাইটে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

ইনকাম করার ওয়েবসাইট
ইনকাম করার ওয়েবসাইট (1)

বর্তমানের সবাই অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে চায়। কিন্তু কিভাবে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে হয়, তার সঠিক গাইডলাইন জানেনা। তাই অনেক মানুষ হতাশ ও দুশ্চিন্তায় ভুগতে থাকে‌। হতাশ হওয়ার কিছু নাই। আমি আপনাদের সামনে টাকা ইনকাম করার বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট নিয়ে আলোচনা করব। এই ওয়েবসাইট গুলো ১০০% রিয়েল ও পেমেন্ট করে থাকে। আসুন জেনে নেই টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলো কি কি। 

Picoworkers-টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে প্রথমে আসে Picoworker। Picoworker একটা মাইক্রো জব সাইট। এই সাইটে আপনি ছোট ছোট কাজের বিনিময় অনেক বেশি পেমেন্ট পাবেন। পিকোওয়ার্কার্পিকোওয়ার্কার্স মূলত আন্তর্জাতিক অনলাইন ইনকাম প্ল্যাটফর্ম। ২৭০ দেশের লোকজন এখানে কাজ করে। 

পিকোওয়ার্কার্সে কাজের ধরন:

  • বিভিন্ন ওয়েবসাইট অ্যাকাউন্ট তৈরি করা। 
  • নতুন জিমেইল অ্যাকাউন্ট তৈরি করা।
  • ফেসবুক পোস্টে লাইক ও কমেন্ট করা।
  • ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব ও ভিডিও দেখা। 
  • টুইটার অ্যাকাউন্টে টুইট ও অ্যাকাউন্ট তৈরি করা।
  • ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল অনুসরণ করা।
  • LinkedIn অ্যাকাউন্ট তৈরি করা। 
  • ওয়েবসাইট ভিজিট করা। 

Picoworker কাজগুলো খুবই সহজ। যারা মোটামুটি মোবাইল ফোন চালাতে পারে, তারাও এই কাজগুলো করতে পারবে। এই সাইটে কাজ আপনি ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন দিয়েও করতে পারবেন। কিন্তু পিকোওয়ার্কার্সে কাজ করার জন্য একটা অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। 

এই লিংকে ক্লিক করে, আপনার জিমেইল আইডি ও জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম ও ঠিকানা দিয়ে সাইন আপ করুন। সাইন আপ করার পরে, লগইন বাটনে ক্লিক করতে হবে। অ্যাকাউন্ট খোলা খুবই সহজ। এখন আপনার সামনে উপরের কাজগুলো চলে আসবে। পিকোওয়ার্কার্স কাজগুলো করতে প্রথমে বুঝতে অসুবিধা হলে। ইউটিউব এর সাহায্য নিতে পারেন।

Inbox Dollars-টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

Inbox Dollars হল একটি অনলাইন সার্ভে সাইট। যেখানে আপনি বিভিন্ন রকমের কাজ করে টাকা আয় করতে পারেন। আরেকটি মজার বিষয় হলো, Inbox Dollars সাইন আপ করলেই ৫ ডলার বোনাস পাবেন। কিন্তু দুঃখের বিষয়, আমাদের দেশ থেকে Inbox Dollars ওয়েবসাইটে প্রবেশ করা যায় না। 

এজন্য আপনাকে ভিপিএন কানেক্ট করতে হবে। ভিপিএন হলো ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক। এজন্য আপনি ফ্রি ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু ভিপিএন ব্যবহার করার সময়, আপনার আইপি এড্রেস টা চেক করে নিতে হবে। কারণ Inbox Dollars যদি কোনো ভাবে জানতে পারে, আপনি ভিপিএন ইউজ করে কাজ করছেন। তাহলে আপনার আইডিটি ব্যান করে দেবে।

Inbox Dollars কাজ সমূহ: 

  1. বিভিন্ন সার্ভে কমপ্লিট করা। 
  2. ভিডিও দেখা।
  3. এড ভিডিও দেখা। 
  4. গেম খেলে টাকা ইনকাম। 

Inbox Dollars একাউন্টে যখন ৩০ ডলার কমপ্লিট হবে। তখন এখান থেকে উইডথড্র দিতে পারবেন। ইনবক্স ডলার থেকে পেপালের মাধ্যমে উইথড্র দেওয়া যায়। এই সাইটটা ১০০% পেমেন্ট করে থাকে। আপনার মনে যদি সন্দেহ থাকে, অবশ্য ইউটিউবে এদের ভিডিও দেখে নেবেন। 

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট Microworkes

Microworkes একটি মাইক্রো জব সাইট। মাইক্রো জব সাইট বলতে ছোট ছোট কাজের বিনিময়ে টাকা ইনকাম। মাইক্রোওয়ার্কারস অনেক পুরোনো একটি ইনকাম ওয়েবসাইট। টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট এর মধ্যে মাইক্রোওয়ার্কারস অন্যতম। মাইক্রোওয়ার্কার্সে অ্যাকাউন্ট তৈরি করা অনেক সহজ। 

মাইক্রোওয়ার্কার্সে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতেই একটা জিমেইল আইডি ও ফোন নাম্বার লাগবে। এখন তৈরি করার সময় জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম ও ঠিকানা ব্যবহার করতে হবে। কারণ মাইক্রোওয়ার্কারস থেকে উইথড্র দেওয়ার সময় আইডেন্টিফাই করতে হয়। আপনার নিজের যদি থাকে পরিচয় পত্র না থাকে, আপনার আত্মীয় স্বজনের জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম ও ঠিকানা ব্যবহার করতে পারেন। 

মাইক্রোওয়ার্কার্সে কাজের ধরন: 

  • মার্কেটিং এর কাজ।
  • বিভিন্ন সাইটে সাইন ইন করে টাকা ইনকাম। 
  • ইমেইল একাউন্ট তৈরী করে ইনকাম।
  • ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট তৈরি।
  • পিন্টারেস্ট ও টুইটার অ্যাকাউন্ট ফলো করা। 
  • রেডিট ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া ভোট প্রদান। 

মাইক্রোওয়ার্কারস থেকে উইথড্র দেওয়া অনেক সহজ। সর্বনিম্ন 10 ডলার হলে এখান থেকে উইথড্র দিতে পারবেন। পেপাল, এয়ারটেম, লাইট কয়েন ও স্কিল শেয়ারের মাধ্যমে উল্টে যাওয়া যায়। 

Swagebuks-টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট 

অনলাইন সার্ভে সাইটের মধ্যে Swagebuks শক্ত অবস্থান ধরে রেখেছে। অনলাইনে ইনকামের ভালো একটা ওয়েবসাইট এটি। দীর্ঘ 10 বছর ধরে এই ওয়েবসাইট পেমেন্ট করে আসছে। তাই নিশ্চিন্তে Swagebuks ওয়েবসাইটে কাজ করতে পারেন। 

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট ইনকাম

কিন্তু Swagebuks ওয়েবসাইটে কাজ করার জন্য আমেরিকান ip-adress দরকার। আমেরিকান আইপি অ্যাড্রেস ছাড়া এই ওয়েবসাইটে কাজ করা যাবে না। আমাদের বাংলাদেশ থেকে এরকম সার্ভে সাইট এ কাজ করা যায় না। তাই ইউএসএ আইপি অ্যাড্রেস/প্রিমিয়াম ভিপিএন ইউজ করে কাজ করতে পারেন। 

swagebuks কি কি কাজ:

  • রেফার করে ইনকাম
  • বিজ্ঞাপন দেখে আয়
  • বিভিন্ন সাইটে সাইন আপ এর কাজ
  • গেম খেলে ইনকাম।

swagebuks থেকে সর্বনিম্ন 8 ডলার উইথড্র দেওয়া যায়। উইথড্র মেথড swagebuks terms and conditions এর বিস্তারিত বলা হয়েছে। এই ওয়েবসাইট থেকে আপনি বিভিন্ন উপায়ে টাকা আনতে পারেন। পেপাল, পেওনিয়ার, এয়ারটেম ও লাইট কয়েন ইত্যাদি। 

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

অনলাইনে আয় করার ওয়েবসাইট হলো আপওয়ার্ক। 

আপওয়ার্ক একটি মার্কেটপ্লেস। এটি এখন সবার মাঝে জনপ্রিয় ও ট্রাস্টেড ওয়েবসাইট।এই সাইটে মূলত ফ্রিল্যান্সররা কাজ করে। এই সাইটটি মূলত ফ্রিল্যান্সিং সাইট। এখানে কাজ করার জন্য অবশ্যই আপনাকে যে কোন একটা কাজের উপর ভালোভাবে পারদর্শী হতে হবে। আপনি যদি কোনো কাজে ভালো দক্ষ না হন তাহলে আপনি এখানে ভালো কিছু করতে পারবেন নাহ এবং কাজও করতে পারবেন নাহ।এখানে কাজ করার আগে জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং এর কজ সমূহ কি কি 

এখানে যে সমস্ত কাজ পাওয়া যায় :

  • ওয়েবসাইট ডিজাইনিং
  • গ্রাফিক ডিজাইন
  • আর্টিকেল রাইটিং
  • ডিজিটাল মার্কেটিং
  • এসইও এক্সপার্ট
  • ডাটাবেইজ এক্সপার্ট
  • মিউজিক এক্সপার্ট
  • ফটোগ্রাফার 
  • ফটো ইডিটর

ইত্যাদি এরকম নানান ধরনের কাজ পাওয়া যায়। অতএব আপনি এই ওয়েবসাইটে কাজ করতে পারেন নির্দ্বিধায়। আপনি যদি এখানে ভালোভাবপ সময় দেন তাহলে আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

ফাইভার (Fiverr)

আপনি যদি কোনো একটি বিষয়ে ভালো দক্ষতা থাকে তাহলে এই ফাইভার সাইটটি আপনার জন্যে অত্যন্ত লাভজনক হতে পারে। এটি ফ্রীলান্সারদের জন্যেও যথেষ্ট ভালো একটা ওয়েবসাইট কারন সাইট্টি মূলত একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট। এখানে আপনি নগদ অর্থের বিনিময়ে কাজ করবেন।টাকা আপনি সাথে সাথে পাবেন মানে বায়ারা টাকা দিয়ে দিবে এবং ১০০ ডলার হয়ে ফেলে আপনি যে কোনো সময় টাকা উঠাতে পারবেন। 

এখানে যে সমস্ত কাজ পাওয়া যায় :

  • ওয়েবসাইট ডিজাইনিং
  • গ্রাফিক ডিজাইন
  • আর্টিকেল রাইটিং
  • ডিজিটাল মার্কেটিং
  • এসইও এক্সপার্ট
  • ডাটাবেইজ এক্সপার্ট
  • মিউজিক এক্সপার্ট
  • ফটোগ্রাফার 
  • ফটো ইডিটর

আপনি Fiverr প্রোফাইল ও বিবরণগুলো ভালভাবে দিয়ে গিগ তৈরি করতে হবে। আপনি এখানে সরাসরি ক্লায়েন্টদের সাথে কথোপকথন করে তাদের প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন এবং কাজ নিতে পারবেন। 

সুবিধাঃ
  • এখানে ফ্রীলান্সারদের নিযুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি। 
  • খুব সুন্দরভাবে এখানে প্রোফাইল তৈরী ও হাইলাইট করা যায়। 
  • এখানে প্রায় ৫০০-ওরও বেশি জীবিকার জন্যে অ্যাপ্লাই করা সম্ভব।

গুগল অ্যাডসেন্স (Google Adsense):

এড মানে হলো কারো কাছে আপনার পন্য বা যে কোনো কিছু প্রচার করা টাকার মাধ্যমে। আর সে এড বিভিন্ন মাধ্যমে শো করায় মানুষের সামনে।

কখনো ফেসবুকে, কখনো গুগলের ওয়েবসাইটে এড শো করার আবার ইউটিউবেও। যাদের ফেসবুক আইডিতে এড শো করার তারা সেখান থেকে কিছু রিভিউ পায়।ঠিক তেমনি ওয়েবসাইট এবং ইউটিউবের ক্ষেত্রে। 

শুধুমাত্র আপনার ব্লগ, ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল থাকলেই আপনি সহজে এটিকে ব্যবহার করতে পারবেন। 

কাজের নিয়মঃ

  • প্রধানত, এটি একটি বিজ্ঞাপন প্রোগ্রাম। 
  • যেটাতে আপনি বিনামূল্যে রেজিস্টার করতে পারেন। 
  • রেজিস্টার করা হয়ে গেলে আপনি একটি কোড পাবেন। 
  • এই কোডটিকে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে যোগ করতে পারেন। শুধু ওয়েবসাইট না, আপনি আপনার ইউটিউবে যোগ করতে পারবেন। 

তারপর গুগল আপনার সাইটটাকে রিভিউ করে দেখবে আপনার সাইট বা চ্যানেলটি এড শো করার জন্য উপযুক্ত কি নাহ। যদি উপযুহয় তাহলে আপনার ওয়েবসাইটে তারা এড শো করাবে এবং সেখান থেকে আপনাকে কিছু রিভিউ দিবে।

কখন কাজটি করতে পারবেন

আপনার একটি ব্লক সাইট বা চ্যানেল থাকলেই হবে।আপনাকে তাদেরকে টাকা দিতে হবে নাহ শুধু কষ্ট করে কন্টেন্ট তৈরী করতে হবে।

অসুবিধা:

আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর না থাকলে গুগল এডো শো করাবে নাহ এবং কখনো নিজে নিজে ভুলেও আপনার ওয়েবসাইটে ঘুরবেন নাহ এতে আপনার এডস লিমিট খাবে।

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট বাংলাদেশ

উপরে যে পাঁচটা ওয়েবসাইট নিয়ে আলোচনা করলাম, সব কয়টি আন্তর্জাতিক টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট। এই কয়েকটি ওয়েব সাইটে কাজ করার জন্য ইংরেজি ভাষার প্রতি দক্ষ হতে হবে। কিন্তু আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষ ইংরেজি ভাষা ভালোভাবে জানে না। তাই তারা চাইলে, বাংলাদেশ এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে কাজ করতে পারে। বাংলাদেশ টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলো:-

অন্য পোষ্ট: সুন্দর হওয়ার ক্রিম এবং উপায় 

Ordinary it 

আর্টিকেল লিখে টাকা ইনকামের অন্যতম প্লাটফর্ম অডিনারি আইটি। এটি একটি দেশীয় অনলাইন ইনকাম প্ল্যাটফর্ম। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি ঘরে বসেই মাসে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারেন। কিন্তু এই ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকাম করতে গেলে, আপনার কিছু দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয়।  টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

Ordinary it ওয়েবসাইটে লেখালেখি করে ইনকাম করা যায়। আপনি যে বিষয়ের প্রতি লেখালেখি করতে ভালোবাসেন। সেই বিষয়ের উপরে একটি আর্টিকেল লিখতে হবে। আর্টিকেল লেখার পর ওই সাইটে আর্টিকেলটি বিক্রি করতে হবে। এভাবেই Ordinary it ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকাম করা যায়।

এছাড়াও বিভিন্ন Ordinary it ওয়েব সাইটে বিভিন্ন রকম অনলাইনে ইনকাম করতে পারেন। তার মধ্যে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স উল্লেখযোগ্য। এই প্রতিষ্ঠান থেকে কোর্স করে অনেক শিক্ষার্থী সফল হয়েছে। 

Putulhost

ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেইন-হোষ্টিং অপরিহার্য একটি বিষয়। Putulhost ডোমেইন ও হোস্টিং প্রোভাইডার একটি কোম্পানি। কিন্তু এই ওয়েবসাইট থেকেও কিন্তু টাকা আয় করা যায়। Putulhost ইনকাম অন্যতম উপায় হল এফিলিয়েট। এফিলিয়েট লিংক এর মাধ্যমে এই হোস্টিং ওয়েবসাইট থেকে টাকা আয় করা যাবে। 

 টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

এই ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকামের জন্য প্রথমেই, Putulhost ওয়েবসাইটের একটা অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। অ্যাকাউন্ট তৈরি হলে আপনার জিমেইল ভেরিফিকেশন করতে হবে। এরপর পুতুলহস্ট এর একটা অ্যাফিলিয়েট লিংক তৈরি করতে হবে। 

এই এফিলিয়েট লিংক এর মাধ্যমে ইনকাম হবে। এই লিংকের মাধ্যমে যারা ডোমেইন ও হোস্টিং ক্রয় করবে। এখান থেকে আপনার কিছু টাকা ইনকাম হবে। অনলাইনে ইনকামের সহজ মাধ্যম এটি। তাহলে আজকেই পুতুল host.com এ্যাকাউন্ট তৈরী করুন। 

Dealancer হলো টাকা ইনকাম করার বাংলাদেশী ওয়েবসাইট

ডিল্যান্সার একটি কাজ করার মার্কেটপ্লেস।  এটি একটি বাংলাদেশী ওয়েবসাইট। এই সাইটটি অন্যান্য মার্কেটপ্লেস যেমন ফাইবার ও আপওয়ার্ক ফ্রিলান্সার ডট কম এর মতোই।

এউ ওয়েবসাইটে সবাই কাজ করতে পারবে যাদের যে কোনো একটা বিষয়ে ভালো দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা আছে।

আপনারা এখানেও কাজ করে খুব সহজেই সফলতা অর্জন করতে পারবেন ।এখানে একটা সুবিধা আছে, আপনার ইংরেজি জানা লাগবে নাহ।  কারণ এখানকার অধিকাংশ ক্লায়েন্ট বাংলাদেশি।তারা আপনার সাথে বাংলাতেই কথা বলবে।

তাদের সাথে কথা বলে প্রত্যেকটি কাজ ভালোভাবে বুঝে নিতে পারবেন এবং সম্পূর্ণ করতে পারবেন।

কাজের ধরন :

  • ওয়েব ডিজাইন
  • ইউটিউব সার্ভিস
  • ফেসবুক সার্ভিস
  • ডিজিটাল মার্কেটিং
  • এসইও এক্সপার্ট
  • সাইট স্পিড অপটিমাইজ
  • কনটেন্ট রাইটিং
  • ফটো এডিটিং 
  • ভিডিও এডিটিং 

ইত্যাদি এরকম অনেক কাজ রয়েছে এই ওয়েবসাইটে।সুতরাং,  আপনি আপনার যোগ্যতা এবং দক্ষতা অনুযায়ী কাজ খুঁজে কাজ করতে পারবেন।

পেমেন্ট সিস্টেম : এই সাইটটি যেহেতু আমাদের দেশি সেহেতু এখানে নগদ , মাস্টার কার্ড , ডেবিট কার্ড , বিকাশ যেকোনো মাধ্যমে আপনি টাকা নিতে পারবেন খুব সহজেই। 

কাজ করার সিস্টেম :

এখানে আপনি কাজ করার আগে ফাইভারের মতোই কিছু নিয়ম মানতে হবে যেমন কাজ করার জন্য অবশ্যই আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।তারপর আপনি যে কাজে পারদর্শী বা অনেক দক্ষতা যে কাজে সে কাজের উপর একটি গিগ তৈরি করবেন।

আর গিগের মধ্যে অবশ্যই কাজের নমুনা পাশাপাশি কত টাকা নিবেন এগুলো উল্লেখ করবেন যেভাবে ফাইভারে করা হয়।

সুতরাং এভাবেই আপনি খুব সহজে এখানে কাজ করতে পারবেন।

Kolotibablo  হলো  টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

এটা বর্তমানে ভালো ট্রেন্ডিং এ আছে। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে মানুষ ভালোই টাকা কামাচ্ছে এবং কাজের চাহিদাও আছে। এখানে কাজ করা অনেক সহজ। এটা এক ধরনের সিপিসি মার্কেটিং। 

এই ওয়েবসাইটে অনেক জনপ্রিয় হচ্ছে দিন দিন। এখান থেকে মূলত বিভিন্ন ধরনের ক্যাপচা পূরণ করে টাকা ইনকাম করা হয়। এই ওয়েবসাইটে কাজ করা অনেক সহজ।

কেননা এখানে কোন ধরনের অভিজ্ঞতা লাগেনা। অভিজ্ঞতা ছাড়াই এই ওয়েবসাইটে আপনি খুব সহজে কাজ করতে পারবেন।

এ ওয়েবসাইটে আপনি যদি বেশি ক্যাপচা পূরণ করবেন ততো ইনকাম হবে।আর এখানে ক্লিকের মাধ্যমে টাকা আসবে যাকে কস্ট পার ক্লিক বলা হয়

যদি আপনি ভালভাবে কাজ করতে পারেন এখান থেকে। তাহলে অবশ্যই পেমেন্ট পাবেন।

এখানে পেপাল ইত্যাদির মাধ্যমে পেমেন্ট করা হয়। পেমেন্ট নিয়ে কোন ধরনের টেনশন করবেন না। আপনি যদি ভালোভাবে কাজ করেন তাহলে অবশ্যই আপনি এই ওয়েবসাইট থেকে টাকা পাবেন।

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট বিল্যান্সার 

এটাও আমাদের বাংলাদেশি ওয়েবসাইট। এটাও আপনি সহজে আপনার কাজের দক্ষতার উপর ভিত্তি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আমি মনে করি এই সাইটটি যারা নতুন তাদের জন্য বেশি উপযোগী কারন আপনি যখন নতুন তখন আপনার অভিজ্ঞতা কম তখন আপনি বড় বড় মার্কেট প্লেস যেমন আপওয়ার্ক,  ফাইভারে কাজ করে সুবিধা করতে পারবেন নাহ কিন্তু এখানে আপনি সুবিধা করতে পারবেন নতুন অবস্থায়। 

আপনি ইংরেজিতে পারদর্শী না হলেও এখানে টাকা ইনকাম করতে সমস্যা হবে নাহ। এখানে আপনি ছোট ছোট কাজ করে ইনকাম করতে পারবেন।

কাজের ধরন :

  • কনটেন্ট রাইটিং
  • গ্রাফিক ডিজাইন
  • ডাটা এন্ট্রি
  • এসইও এর কাজ
  • ওয়েব ডিজাইন
  • মার্কেটিং
  • কাস্টমার সাপোর্ট

ইত্যাদি এরকম নানান ধরনের কাজ পাওয়া যায়। এখানে পেপাল , বিকাশ ইত্যাদির মাধ্যমে পেমেন্ট করা হয়। এখানে যদি আপনি ভালভাবে কাজ করেন তাহলে অবশ্যই পেমেন্ট পাবেন ভয়ের কোন কারন নাই।

একটা কথা মনে রাখবেন, কখনো সব কিছু শিখতে যাবেন নাহ। একটি কাজের উপর নিজেকে দক্ষ করে তুলেন। এই একটি কাজি আপনাকে উন্নতির শিখরে পৌছে দিবে।

একটা বিষয়ে পারদর্শী হওয়ার পর কাজ শুরু করে দেন। এতে আপনি খুব সহজেই সফলতা অর্জন করতে পারবেন। এ বিষয়টি অবশ্যই খেয়াল রাখবেন।

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট ভারতে

উপরের সাইটগুলো বিদেশী এবং বাংলাদেশী। এখন যেগুলোর কথা বলবো সেগুলো ভারতের ওয়েবসাইট।এখান থেকেও আপনারা অনেক টাকা কামাতে পারবেন যদি থাকে দক্ষতা এবং সবর মানে ধৈর্য।

মার্চ বাই আমাজন (Merch by Amazon): 

মার্চ বাই আমাজন হল ভারতীয়দের জন্যে তৈরী একটি জনপ্রিয় প্রিন্ট-অন-ডিমান্ড প্ল্যাটফর্ম। 

আপনি যদি একজন ডিজাইনার হন তাহলে এই সাইটটি আপনার জন্য বেস্ট হবে।ডিজাইনের উপর ভালো দক্ষতা থাকলে আপনি কম সময়ে এখান থেকে ভালো কিছু করতে পারবেন।

অন্যান্য প্রিন্ট-অন-ডিমান্ড প্ল্যাটফর্মের থেকে আমাজনের জনপ্রিয়তা বেশি হওয়ায়, এর ওয়েবসাইটে সবসময়েই বেশি ট্রাফিক পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। 

আর যেখানে ট্রাফিক বেশি সেখানে ইনকাম ও বেশি। যেহেতু বেশি বায়ার এখানে আসে সেহেতু আপনি কাজ পাবার শতভাগ নিশ্চয়তা থাকে।

কাজের ধরণ:

আপনি যে কাজ জানেন সেটা তাদের বুজাতে হবে। আপনি একজন দক্ষ ডিজাইনার কি না সেটাও নিশ্চয়তা লাগবে। আপনি উচ্চ মানের প্রয়োজনীয় ডিজাইন করতে পারেন এবং চাহিদা অনুযায়ী প্রিন্টের ব্যবসা চালাতে সক্ষম আপনি

অসুবিধা:

এটা ভারতীয় হলেও এটার পেমেন্ট হয় ডলারে। আর এটার জন্য আপনাকে payoneer account লাগবে।তারপর আপনি পেমেন্ট রিসিভ করতে পারবেন।

ডিজিটালমার্কেট (DigitalMarket)

আমরা ইতিমধ্যে জেনেছি ফাইবার, আপওয়ার্ক, ফ্রিল্যান্সার ডটকম এর মতো অনেক অনলাইন কাজ করার প্লাটফর্ম। তেমনি ডিজিটালমার্কেট হল একটি অনলাইন উপার্জনের সাইট। 

এখানে ক্রেতা এবং বিক্রেতা মানে সেলার এবং বায়াররা ডিজিটাল সেবা পেয়ে করে থাকে এবং পেয়ে থাকে

এটায় কোনো তৃতীয় ব্যক্তির দরকার হয় নাহ।কোনো ধরনের তৃতীয় ব্যক্তির হস্তক্ষেপ ছাড়াই এখানে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের, বায়ার এবং সেলার সরাসরি যোগাযোগের মাধ্যম কাজ করে।

এখানে খুব সহজেই বিশ্বস্ত অ্যাফিলিয়েট, মার্কেটিং, ব্লগ, কনটেন্ট রাইটিং ইত্যাদির মতো ক্রয় ও বিক্রয় করার জন্য নানান অনলাইন পরিষেবা পাওয়া যায়।

এই ওয়েবসাইটটির পরিষেবাগুলো অনেকটাই ব্যয়সাপেক্ষ। এখান থেকে পরিষেবা নিতে গেলে একটু বেশি পরিমাণ অর্থ খরচ করতে হয়।

সাটারস্টক (Shutterstock) টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

আচ্ছা আপনি কি একজন ভালো ফটোগ্রাফার?  যদি হয়ে থাকেন তাহলে আপনার জন্য এই মার্কেটটি বেস্ট। এখানে আপনি ভালো ভালে, চোখ জুড়ানো ফটো তুলে আপলোড দিয়ে রাখতে পারবেন।

কারন সাটারস্টক হল আপনার জন্য সেরা স্টক ফটোগ্রাফির ওয়েবসাইটগুলোর মধ্যে একটি। 

এটি অনেক পুরোনো, বিশ্বস্ত ও জনপ্রিয় ওয়েবসাইটের মধ্যে বহুলভাবে পরিচিত।

এখানে যেভাবে কাজ করবেনঃ

এখানে বিনামূল্যে ফটো আপলোড করার পর ভিজিটররা তাদের পছন্দ অনুযায়ী ফটো নিবে তখন সেখান থেকে আপনাকে কমিশন দেওয়া হবে।

এখানে আপনাকে সময় দিতে হবে এবং কষ্ট করতে হবে নাহ। ভালো ফটো তুললে যে কেউ নিতে চাইবে।

আর, প্রতিটি ডাউনলোডের জন্য আপনার ফটোগুলো স্টক পায়। সেই অনুযায়ী আপনি একটি রয়্যালটি পান এবং এর থেকে আপনার অর্থ লাভ হয়। 

পেমেন্ট সিস্টেম 

যেহেতু বিদেশি সাইট সেহেতু আপনার পেমেন্ট ডলারে হবে। সেজন্য আপনাকে ডলার পেমেন্ট করার মতো একটি একাউন্ট তৈরী করে রাখতে হবে

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট নিওবাক্স (NeoBux)

এটি একটি বহুদিনের পুরোনো ও বিশ্বস্ত অনলাইন টাকা উপার্জনের পিটিসি (পেইড টু ক্লিক) সাইট। এটি নতুন উপায়গুলো গ্রহণ করার মাধ্যমে তাদের ব্যবসাটিকে আরও প্রসারিত করেছে। নিওবাক্স-এর সাহায্যে আপনি ভারতে ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

যেভাবে টাকা ইনকাম হবে

অন্যান্য PTC ওয়েবসাইটগুলোর থেকে এই নিওবাক্স-এর পরিষেবাগুলো অনেকটা ভিন্ন এবং সহজ।এখানে আপনি সার্ভে করতে পারবেন, ভিডিও দেখে ইনকাম করতে পারবেন, গেমস খেলেও টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

আরো একটি উপায় টাকা ইনকামের

এখানে একটা অ্যাফিলিয়েট সিস্টেম আছে। আপনি একাউন্ট করার পর আপনাকে একটা অ্যাফিলিয়েট লিংক দিবে এবং আপনি অন্যকে এখানে একাউন্ট খুলে দিয়ে আপনার রেফারেলের মাধ্যমে সেখাম থেকে টাকা বা কমিশন পাবেন

ওয়াইসেন্স (YSense)

ysense

ভারতের শীর্ষ উপার্জনকারী ওয়েবসাইটগুলির মধ্যে একটি হল এই ওয়াইসেন্স। নিওবাক্স-এর মতো এটিও ভারতের সেরা উপার্জনকারী PTC ওয়েবসাইটগুলোর মধ্যে অন্যতম। 

কাজের ধরণ:

এটি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সাথে কাজ করে তাদের বিভিন্ন পণ্য সম্পর্কে সমীক্ষা করতে সাহায্য করে। এখানে আপনাকে ইউসার-ফ্রেন্ডলিনেস, ডিসাইন, রঙ, ইত্যাদি সম্পর্কে নানান ধরণের প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়৷ এমনকি, ভবিষ্যতে কোম্পানির দ্বারা প্রকাশিত পণ্যগুলিকে প্রভাবিত করতে আপনার হাত থাকতে পারে৷এই ওয়েবসাইটে বিভিন্ন পণ্য কোম্পানির মাধ্যমে আপনাকে উপার্জন করার সুযোগ দেওয়া হয়।

 এখানে মূলত দুইটি ধাপে টাকা রোজগার করা সম্ভব। প্রথমে আপনাকে লগ ইন করে বিভিন্ন অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। তারপরে, সেখানকার বিভিন্ন পণ্য ব্যবহার করে অথবা দ্রুত নগদ রোজগার করা শুরু করতে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে সাইন আপ করতে হবে।

অসুবিধা:

এখানে দেখা যায় অনেকগুলো অ্যাপ ডাউনলোড করতে হয় এবং পন্য ব্যবহার করতে হয়। এতে আপনার কম্পিউটার বা মোবাইলে ভাইরাস ডুকতে পারে বা মেমোরি ফুল হয়ে যেতে পারে।

অ্যাটসি (Etsy)

অ্যাটসি হল অতি জনপ্রিয় ও বিশ্বাসযোগ্য ওয়েবসাইটগুলোর মধ্যে একটি। এখানে আপনি সহজে পরিশ্রমের সাথে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

কাজের ধরণ:

একজন শিল্পীর জন্য এই সাইটটি ভালো হবে। আপনি আপনার গান বা গয়না এখানে বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন

সুবিধাঃ

আপনি এখানে নিজের একটি দোকান তৈরী করতে পারবেন ঝামেলা ছাড়াই।  এবং সেখানে পনয় রাখতে পারবপন

উপসংহার

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট নিয়ে অনেক গুলো সাইটের নাম দিলা। এগুলো ছাড়াও আরো অনেক টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট আছে। অনলাইনে ইনকামের অনেকগুলো মাধ্যম রয়েছে। অনলাইনে ইনকামের সকল সেক্টরের থেকে সহজ উপায় ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম। আমি চেষ্টা করেছি টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলো আপনাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া। আমি যে কয়েকটা ওয়েব সাইট আপনাদের সামনে তুলে ধরেছি। সবগুলো ওয়েবসাইট ১০০% পেমেন্ট করে থাকে। এ বিষয়ে কনফার্ম হওয়ার জন্য ইউটিউব ও গুগলের সাহায্য নিতে পারেন।  


Spread the love

Leave a Comment